ই-কমার্স

ই-কমার্স ওয়েবসাইটের সাথে ফ্রি এ্যান্ড্রয়েড মোবাইল ফোন এ্যাপ

free android apps

বর্তমানে বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষই ইন্টারনেট ব্যবহার করে থাকেন মোবাইল ফোনের মাধ্যমে। ই-কমার্স বা অনলাইন বানিজ্যের জনপ্রিয়তার অনত্যম একটি কারণও মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাওয়া। তাই যারা ই-কমার্স ওয়েবসাইট বানিয়েছেন বা বানাতে চান তাদের একটি মোবাইল ফোন এ্যাপ থাকাও অত্যান্ত জরুরী, কারণ ইন্টারনেট সম্বন্ধে অনভিজ্ঞ ব্যবহারকারীগণ সহসাই বুঝতে পারেন না কিভাবে ওয়েব ব্রাউজারে ঠিকানা লিখে একটি ওয়েবসাইট ভিজিট করতে হয়। সেক্ষেত্রে আপনার ওয়েবসাইটের যদি একটি এ্যাপ থাকে তাহলে ফোনে শুধুমাত্র একটি আইকনে ট্যাপ করলেই আপনার ওয়েবসাইটে তারা পৌঁছে যেতে পারবে। এই বিষয়টিই বিবেচনায় রেখে ই-কমার্স হোস্ট প্রতিটি রেন্ট এ শপ প্ল্যানের সাথে ফ্রি এ্যান্ড্রয়েড মোবাইল ফোন এ্যাপ দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ফলে স্টার্টআপ উদ্যোক্তাগণ কোন ডেভেলপমেন্ট কস্ট ছাড়াই পাচ্ছেন একটি এন্ড্রয়েড এ্যাপ।

ফ্রি এ্যাপ সম্বন্ধে যেসব বিষয় জানা থাকা প্রয়োজন

যারা ফ্রি এ্যাপের বিষয়ে আগ্রহী তাদের যেসব বিষয় জানা থাকা দরকার তা নিচে দেয়া হলো।

  • এ্যাপটি শুধুমাত্র গুগল এন্ড্রয়েড ফোনে চালিত করা যাবে,
  • এ্যাপটি WebView (ওয়েব ভিউ) পদ্ধতিতে বানানো হয়ে থাকে অর্থাৎ ইন্টারনেট ব্রাউজারে ওয়েবসাইট লোড হওয়ার পর যেরকম দেখা যায় সেরকম দেখাবে,
  • এ্যাপটি গুগল প্লে-স্টোরে আপলোড করা হবে না, এটি শুধুমাত্র কুইক শপ প্ল্যানে সাইনআপকারীগণের ওয়েবসাইট থেকে তাদের ক্রেতাগণ ডাউনলোড করে ইনস্টল করে নিতে পারবেন, তবে কেউ চাইলে স্ব-উদ্যোগে তা প্লে-স্টোরে আপলোড করতে পারবেন আর যদি কেউ ই-কমার্স হোস্টের মাধ্যমে তা প্লে-স্টোরে আপলোড করতে চান তাহলে ৳ ১০,০০০/- ওয়ান টাইম ফি প্রদানের মাধ্যমে তিনি তা করতে পারবেন। এক্ষেত্রে পরবর্তীতে এ্যাপটিতে সাধারণ কোন পরিবর্তন বা সময়োপযোগী করার প্রয়োজন হলে ই-কমার্স হোস্টকে আর কোন ফি প্রদান করতে হবে না।

প্লে স্টোর ছাড়াও এ্যাপ ইনস্টল কিভাবে বাড়ানো যেতে পারে?

প্লে স্টোরে এ্যাপ আপলোড করা ছাড়াও এ্যাপ ইনস্টল যেভাবে বাড়াতে পারেন।

  • ওয়েবসাইটে সবার চোখে পড়ে এরকম স্থানে এ্যাপটির ডাউনলোড লিংক দিয়ে,
  • আপনার যদি কোন দোকান, অফিস বা কোন প্রতিষ্ঠান থাকে সেখানে QR কোডের মাধ্যমে এ্যাপটির ডাউনলোড লিংক দিয়ে স্টিকার ব্যবহার করে,
  • আপনার ভিজিটিং কার্ডে QR কোডের মাধ্যমে এ্যাপটির ডাউনলোড লিংক দিয়ে,
  • প্রতিদিন যেসব ব্যবসায়িক ই-মেইল পাঠান সেগুলোতে সিগনেচারের স্থানে এ্যাপটির ডাউনলোড লিংক দিয়ে,
  • ফেসবুক পেজ বা প্রোফাইলে এ্যাপ ডাউনলোড লিংক শেয়ার করা ও পেজের উপরে ‘পিন‘ করে রাখার মাধ্যমে ইত্যাদি।

আপনি যদি এ্যান্ড্রয়েড ও আইফোন উভয় সিস্টেমের জন্যে আরো এ্যাডভান্সড কোন এ্যাপ নিজের পছন্দ মাফিক বানাতে চান, তাহলে আমাদের Highly Qualified (সুদক্ষ) এ্যান্ড্রয়েড ও আইফোন এ্যাপ ডেভেলপারদের মাধ্যমে তা করতে পারেন। নিজের পছন্দ মতো এ্যাপ ডেভেলপেমন্টের খরচসহ বিস্তারিত জানার জন্যে ‘হায়ার এ ডেভেলপার‘ পেজটি ভিজিট করুন।

Back to list